Paritush Paul

September 17, 2021 2 By JAR BOOK

কবি ও লেখক পরিচিতি

Paritush Paul

Student

Brahmanbaria


অন্ধের নড়ি


অন্ধ বাবার ‘ নড়ি ‘ খোকা
গ্রাম ছেড়ে যায় শহরে
বাবার সাথে ঘুরে,রিজিক খুড়ায়
প্রদোষে ফিরে রেললাইনের ঐ বস্তিতে।

মা হারা ছোট্ট খোকা
অন্ধ বাবার হাতটি ধরে
জনে – দোকানে হাত পাথে
রোদ-বৃষ্টি,ভিজে পুড়ে।

বাবার হাতের ষষ্টী হয়ে
খোকা চলে কোমল চরনে
মনে জাগে কত স্বাদ…..
প্রায় দিনই যায় তার,অনাহারে।

ছোট্ট খোকার ক্লান্তি ভীষণ
তবুও সর্বত্রই থাকে,খুশি মন
মায়াবী তার দ্বীনয়নে…….
আছে,আকাশ ছোঁয়ার স্বপন।

খোকা বলে…..
আমি বড় হয়ে,কাজ করে
করব অনেক টাকা রোজি
বাবা, তুমার চোখে আলো ফিরাব
তুমি দেখবে আবার পৃথিবী।

ঘুরব না মোরা রাস্তায় রাস্তায়
পাথব না,জনে- দোকানে হাত
বাঁধব একটি কুড়ে ঘর
পেট ভরে খাব ভাত।

খোকার কথা,শুনে বাবার
সুখের অশ্রু যায় ঝরে
খোকাকে দু’হাতে টেনে নেয়
অন্ধ বাবার, বুকের পাজরে।

বাবার দিন যায়,সন্ধ্যা হয়
সুখ প্রভাতের আশায়……
প্রার্থনা করে ‘ বিধির ‘সহায়
অন্ধের নড়ি,খোকার ভেলায়

মায়ের প্রতীক্ষা


সূর্য লুকালো,সন্ধ্যা হল
তবুও,ছেলে ফিরছে না ঘরে
মায়ের কথা মনে নেই তার
খেলছে আপন মনে।

এদিকে মা, করছে চিন্তা
ছেলেটি আসবে,আমার কবে!
মা মা করে ডাকতে ডাকতে
পড়বে কখন, মোর বুক জড়িয়ে।

মা ভাবে ছেলেটি আমার
বেড় হয়েছিল সেই কখন
যত আঁধার ঘনিয়ে যাচ্ছে
অস্তির হচ্ছে মায়ের মন।

মা জননী, দয়াবতী
অশান্ত মন নিয়ে
এদিকে-ওদিকে ঘুরে বেড়াচ্ছে
আপন ছেলের খুঁজে।

একে বলছে- ওকে বলছে
ছেলেকে ফিরে পাবার আশা
এই পৃথিবীতে ছেলে ছাড়া
মা যে বড় একা।

ছেলের শোকে ঘুড়ছে মা
লুটছে ধূলায় শাড়ীর আঁচল
পথে পথে খুঁজে বেড়ায়
হয়ে, ছেলের জন্য পাগল।

দিন যাচ্ছে, রাত পোহাচ্ছে
আমার ছেলে আসবে একদিন ফিরে
ছেলের আশায় জীবন কাটাচ্ছে –
মায়ের, দুটি নয়ন জলে