H M Abdur Rahman

September 16, 2021 0 By JAR BOOK

কবি ও লেখক পরিচিতি

H M Abdur Rahman

Study

Kandipara, Sadar, Brahmanbaria  

বাবা

আমি ব্যবসা করবো’ বলে কান ঝালাপালা করে দেয় তারিফ। আরিফ সাহেবের একমাত্র আদরের ছেলে। এতে তারিফের মা বিরক্ত হলেও আরিফ সাহেব নিরব শ্রোতার ভূমিকা পালন করেন। তিনি চান, তার মতো তার ছেলেও ব্যবসা করবে। সত্যি বলতে ব্যবসার প্রতি তারিফের অতি আগ্রহ পুরোটাই আরিফ সাহেবের অবদান।


তারিফ তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ে। বাবা ব্যবসা করেন। তার পরিচিত আঙ্কেলরাও (বাবার বন্ধুরা) ব্যবসা করেন। তারিফ ভাবে, সেও ব্যবসা করবে। তাই বাবা-মায়ের কাছে ব্যবসার কথা বলে বলে বিরক্ত করে। মায়ের কথা হলো, আগে পড়াশোনা করে বড় হও, তারপর বাবার সাথে ব্যবসা করবে তুমি। কিন্তু তারিফ নাছোড়বান্দা। সে জানে, বলতে বলতে বিরক্ত না করলে সে কোনোকিছু পায় না। সে অনেক খেলনার জিনিস এভাবে আদায় করেছে। শেষবার তার সাইকেলটা কেনার আগেও অনেক কান্নাকাটি করতে হয়েছে। সবাই বলেছিলো, সাইকেল চালিয়ে নাকি কোনো গণ্ডগোল বাঁধাবে তারিফ।


একদিন রাতে আরিফ সাহেব তারিফকে কাছে ডাকেন। কনিষ্ঠাঙ্গুলী বাড়িয়ে দিয়ে ছেলেকে নিয়ে চলেন বাগানের দিকে। বাগানের দক্ষিণে পাতা বেঞ্চিতে গিয়ে বসে পড়েন। তারপর একটু কেশে কথা বলতে শুরু করেন- ব্যবসায়ীদের মধ্যে সবচেয়ে সহজভাবে ব্যবসা করেন বিনিয়োগকারীগণ। তারা বিভিন্ন খাতে বিনিয়োগ করে লাভবান হোন। এতে তেমন পরিশ্রম হয় না। ব্যাপারটা এমন- ধরো, তুমি ২০ টাকা দিয়ে ব্যবসা শুরু করেছো। আমি তোমাকে আরো ১০ টাকা দিয়েছি। এবার তুমি মোট ৩০ টাকা দিয়ে ব্যবসা করছো আর আমাকে তোমার লাভের একটা অংশ দিচ্ছো। আমি বিনা পরিশ্রমে লাভবান হলাম। এটাই হচ্ছে ইনভেস্ট বা বিনিয়োগ। আর যারা ইনভেস্ট করেন, তাদেরকে ইনভেস্টর বলে। ‘হুম, তাহলে আমাকে ইনভেস্টর হতে হবে’ বলে নড়েচড়ে বসে তারিফ। ‘গুড, বুদ্ধিমান ছেলে আমার’ বলে সন্তুষ্টি জানান দেন আরিফ সাহেব। তারপর গর্ব করে বলেন, তোমাকে আমি আগামিকাল সেই জায়গার সন্ধান দিব, যেখানে ইনভেস্ট করলে সবচেয়ে বেশি লাভবান হওয়া যায়। 


পরদিন শুক্রবার। সাড়ে বারোটায় ভালোভাবে প্রস্তুত হয়ে ছেলেকে মসজিদের দিকে রওয়ানা হোন আরিফ সাহেব। তারিফ খুব খুশি। তার বাবা আজকে তাকে ইনভেস্ট করার সবচেয়ে ভালো জায়গার সন্ধান দিবেন।


জুম্মার নামাজের পর খতীব সাহেব ছোট্ট করে দানের ফযীলত বর্ণনা করেন। বলেন, আল্লাহর রাস্তায় দান করলে আল্লাহ তায়ালা এর বিনিময় দশগুণ বাড়িয়ে দেন। তারিফ বুঝে যায় কোথায় তাকে ইনভেস্ট করতে হবে। পকেট থেকে বাবার দেওয়া চকচকে ১০০ টাকার নোটটা বের করে দানবাক্সে ঢুকিয়ে দেয় সে। বাবাকে জড়িয়ে ধরে মিষ্টি একটা হাসি দিয়ে বলে, ধন্যবাদ বাবা! আমি এখন থেকে প্রতি সপ্তাহে আল্লাহর রাস্তায় ১০০ টাকা ইনভেস্ট করবো। আরিফ সাহেব মনের অজান্তেই মনের গভীর থেকে বলে উঠেন- আলহামদুলিল্লাহ! 


~ইনভেস্টর 

~আব্দুর রহমান”