রাত্রিক্ষণ

October 15, 2020 0 By jarlimited

শেখ তারিফুল ইসলাম

এখন রাত
হালকা আলোকের অন্ধকারময় রাত
হাজার হাজার পাখির অজস্র অবিরাম কলরবহীন রাত্র
ঘুমাতে দিচ্ছে না আমায়
একটুখানিও।
অশ্বথ বৃক্ষের কোলে বসে শুনি কালপুরুষ ভাইয়েরা
শূন্য বন্দরে অন্ধকারে ঠেস দিয়ে
কোনো এক গভীর কুয়োর ভিতর থেকে ডাকছে।
ধ্রুবতারা তার অদৃশ্য আলিঙ্গনে নড়ে উঠে,
ফিকে হাওয়ায় যেমনি অশ্বথ গাছটা নড়ে।
এমনি করুন আঁখিপাতে প্রেমহীন মালা ফেলে
নীলরং হারানো শাশ্বত গভীর কোনো সমুদ্রের
স্ফীতি ছাড়িয়ে, তরঙ্গ ভেঙে বুক ছাপিয়ে চলা
জাহাজের ডেক থেকে এক নাবিক চেয়ে আছে।
হয়তোবা। হয়তো না।
হয়তো কল্পনা কুমারী অপেক্ষা করছে
একটুকরো মেঘের জন্য
এই রাতে।
বিরামহীন ঝাপ্টা নিয়ে
শিব তান্ডবে ফুস ফুস করা আগ্রাসী
তার জানালার শিক ভেঙে আসবে।
আর আঘাত করবে তার কোমল ঠোঁটে।
এখন এমনি একটি রাত।
জীবনানন্দ দাশের গভীর হাওয়ার রাত।
কলসের কালি ছড়ানো কুচকুচে রাত।
শতাব্দী কিংবা সহস্র বছরের পুরনো ময়লার রাত।
যেখানে ছায়ার খেলায় জেগে আছি আমি।
নিশাচরেরাও আছে জেগে।
আলোর প্রেতাত্নারা অতীত ব্যাপ্তির অনুভবে
সপ্তর্ষির শব্দহীন গুঞ্জনের ভিতর দিয়ে এসে
হেঁটে চলেছে এই রাতে।
ইশারায় নির্জনতার স্বাদে
হরিণীর অপলক চমকের সাথে অপরাধী অঘুম
দুর্নিবার বাদুরের মতো
সময়ের ধীরতার মতো
সময়ের দ্রুততার মতো
সীমাহীন পাতালের মতো
বালিহীন উপ্ততাভাঙ্গা মরুভূমিতে
স্রোতহীন নদীর বিপরীতে
অকুল তিমিরে
আটকেছে আমায় এই রাতে
কোনো এক শিউলীর গাছের পাশে
এই অশ্বথের তলায়
ঝরা বকুলের কানে কানে
অখ্যাত আঁধারের অনুরূপে
পুরনো সভ্যতার গায়ে
পৃথিবীর অবিরল শেফালিকায়
ভেসে থাকা এই রাতে
হালকা আলোকের অন্ধকারময় রাতে
ঘুমোতে দিচ্ছে না আমায়
একটুখানিও।

Date: October 5, 2020
Time: 6:25 pm