woman writing on a notebook beside teacup and tablet computer

ছাত্র শিক্ষক সম্পর্ক

July 30, 2022 0 By jarlimited

ছাত্র শিক্ষক সম্পর্ক কেমন হওয়া উচিত? ছাত্ররা তাদের শিক্ষকদের প্রতি কেমন শ্রদ্ধাবোধ দেখাবে এই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সম্প্রতি ঘটে যাওয়া কয়েকটি ঘটনা তা আমাদেরকে স্পষ্ট করে দেয়। একজন শিক্ষক ছাত্রদের সাথে কেমন আচরণ করবেন যেন ছাত্ররা তার সাথে সম্পর্কের সীমারেখা অতিক্রম করতে না পারে সে বিষয়ে কোন নীতিমালা নেই একজন শিক্ষক যখন ছাত্রদের গতানুগতিক কাজ কর্মে বাঁধা দিয়ে থাকেন তখন ছাত্রদের মূল উদ্দেশ্য এটা হয়ে দাঁড়ায় যে কীভাবে শিক্ষককে সরানো যায় । তাহলে কেন ছাত্র-ছাত্রীরা গতানুগতিক কাজকর্মে জড়িয়ে পড়ছে তার উৎস খোঁজা দরকার


প্রথমত হচ্ছে বর্তমান যুগে ইন্টারনেটের বিস্তর প্রসার এই সোস্যাল মিডিয়ার যুগে ইহা ছাড়া কল্পনাই করা যায় না একজন ছাত্র যতটুকু সময় পড়াশোনার পিছনে ব্যায় করে তার চেয়ে বেশি সময় ব্যায় করে ইন্টারনেটের মধ্যে আর সেখান থেকে সে যা অর্জন করে:

. অগনিত নাটক, শর্টফিল্মটি , বিভিন্ন সিনেমার শর্ট সিন
এগুলো গভীর আগ্রহের সহিত দেখে
২. টিকটক যা মূলত  ব্যাধি এতে আসক্ত হলে এর কোন ঔষধ নেই
৩. ইউটিউব এর সুরসুরি মূলক ভিডিও যা কিশোরদের মস্তিষ্কেককে উত্তেজিত করে রাখে।
৪. সোস্যাল মিডিয়ায় ছবি আপলোড লাইক কমেন্ট বিচার বিশ্লেষণ অবান্তর কন্টেন্ট ক্রিয়েট ইত্যাদি

উপরিউক্ত বিষয়গুলো যখন আমাদের কোমলমতি শিশু কিশোররা দেখে তখন তারা নিজেদের জীবনে এগুলো প্রয়োগ করতে চায় সিনেমার আবান্ঞ্চিত কাহিনীর মতো নিজের জীবনকে সাজাতে চায়  তাদের মস্তিষ্কে যখন এটা সেটা হয়ে যায় অর্থাৎ এগুলো দেখতে দেখতে ব্রেইন ওয়াশ হয়ে যায় এবং সে অস্থিরতার মধ্যে অবস্থান করে তখন
তার জন্য আবশ্যক একটি মেয়ে অথবা ছেলে যেকোনো মূল্যে হোক তা প্রোয়জন হয় সেটা ফ্রেন্ডশিপ নয় প্রেম ভালোবাসা যার মাধ্যমে সে অর্জিত রোমান্সগুলো প্রয়োগ করতে পারে
ফলাফল পড়াশোনা থেকে দূরে সরে যায় মা বাবার কথা মানতে রাজি নয় শিক্ষকদের পাঠদান তার ভালোলাগে না
মেজাজ খিটখিটে থাকে কারো কথা শুনতে মন চায় না ।
শিক্ষক তো পরম অভিভাবক তিনি চান ছাত্র-ছাত্রীর যেন পড়াশোনায় মনোযোগী হয় সেই জন্য তাগিদ দিতে থাকেন।
ছাত্ররা তখন তাকে আর ভালো চোখে দেখে না। অভিভাবকদের কাছে যখন শিক্ষকরা নালিশ করে অথবা নোটিশ পাঠান তখন ছাত্ররা তেলেবেগুনে জ্বলে এবং শিক্ষকদের উপর চড়াও হতে চায়।
টিকটকের মতো মারাত্মক ব্যাধি পৃথিবীতে দ্বিতীয়টি আছে কি না আমার জানা নেই সেখানকার সিংহভাগ পারফর্মার শিক্ষার্থী। যা এই প্রজন্মের জন্য হুমকি দেখা যাচ্ছে মা ছেলে একসাথে নাচছেন এবং সীমালঙন অবস্থায় শ্রদ্ধাবোধ নেই সম্মান এর যায়গাটুকু নেই।ভাই বোন অশ্লীল অবস্থায় টিকটক করছেন। এখানে যেহেতু আত্মমর্যাদা, মূল্যবোধ শ্রদ্ধাবোধ এগুলো নেই তাহলে শিক্ষক সে তো বহুদূর।
এবার আসি পাঠ্যপুস্তক এর মধ্যে পাঠ্যপুস্তকের অন্তর্ভুক্ত এমন বিষয় কেন রাখা দরকার যা আমাদের মূল্যবোধ শিখায় না ছাত্রশিক্ষক সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক, শ্রদ্ধাবোধ , মানবিক নৈতিক গুনাবলি অর্জন  ইত্যাদি শেখায় না। একজন শিক্ষক কেমন হবেন তার কী কী গুনাবলি থাকা দরকার তা তার জানতে হবে
শুধুই যে বইয়ের মধ্যে তা আছে তা মুখস্থ করে গড়গড় করে পড়াবেন তা কিন্তু নয়। তাকে অন্তর্ভুক্ত পাঠদানের বাহিরে ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলা নৈতিক শিক্ষা সম্পর্কে বলা সৎগুনাবলি অর্জন মা বাবার প্রতি শ্রদ্ধা শিক্ষকদের প্রতি শ্রদ্ধা ইত্যাদি বিষয় অবহিত করবেন। সর্বোপরি বাস্তব কর্মমুখী শিক্ষা সম্পর্কে বলা কীভাবে মানুষের মতো মানুষ হওয়া যায় বিখ্যাত  ব্যাক্তিদের উদাহরণ দিয়ে বুঝানো | আমরা এগুলো করি না আমাদের দরকার জিপিএ ফাইভ ভালো রেজাল্ট মানুষ হওয়ার দরকার নেই । একজন পীরকে যেইভাবে তার সাগরিদ সব কিছু পাওয়ার জন্য সর্বস্ব লুটে শ্রদ্ধা ভক্তি সম্মান দেখান একজন ছাত্রের মানুষের মতো মানুষ হতে হলে তাই করা উচিত। উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত নতুন পাঠ্যবই এর মধ্যে আমরা এমন কিছু যোগ করতে পারি যেই কবিতা, গল্প,, উপন্যাস রম্য রচনা নাটক  নীতি নির্ভর নৈতিক গুনাবলি অর্জন সম্পর্কে ধারণা দেয় ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলতে সহায়তা করে শিক্ষকের মর্যাদা তাদের সম্মান সম্পর্কে ধারণা দেয় | কোমলমতি শিশু ও কিশোর রা এগুলো পড়ার মাধ্যমে তাদের মধ্যে ইতিবাচক মনোভাব তৈরি হবে এবং ছাত্র শিক্ষক সম্পর্ক উন্নতি হবে বলে আশা করা যায়।

মোঃ আবু ইউসুফ
প্রানিবিদ্যা বিভাগ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত
সরকারি তিতুমীর কলেজ,ঢাকা 

মোঃ আবু ইউসুফ